রোগী জাহান্নামে যাক: ম্যাজিস্ট্রেটের স্ট্যাটাস ভাইরাল

স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (কুমেক) গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হয়েছেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমদাদুল হক তালুকদার। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে স্ত্রীকে নিয়ে কুমেক হাসপাতালে যান ইমদাদুল হক। হাসপাতালের কর্তব্যরত কর্মী ও চিকিৎসকদের কাছে নিজের পরিচয় সে সময় প্রকাশ করেননি তিনি।

এ নিয়ে ভুক্তভোগী ওই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শুক্রবার সকালে ও বিকালে তার ফেসবুক আইডিতে দুটি স্ট্যাটাস দেন, যেখানে কুমেক হাসপাতালে তার বিড়ম্বনার নানা তথ্য তুলে ধরেন। তার সেই স্ট্যাটাস নেট দুনিয়ায় গতকাল থেকে ভাইরাল।

ম্যাজিস্ট্রেট ইমদাদুল হক তালুকদারের সেই স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হল,

‘রাত ৩:৩০। আমার স্ত্রীর হঠাৎ তীব্র পেট ব্যথা। ও চিৎকার করছিল। খুব ঘাবড়ে গেলাম। ইমার্জেন্সি অ্যাম্বুলেন্সের অনেকগুলো নম্বর নিয়ে কল করতে থাকলাম। কেউ কল ধরল না।

বড় বড় হাসপাতালের নম্বরে কল দিলাম। কেউ ধরল না। একজন দয়া করে অ্যাম্বুলেন্সের কল ধরে জানালেন তার অ্যাম্বুলেন্স ঢাকায়। পাওয়া গেল না।

আমার মোটামুটি সব ড্রাইভারকে কল দিলাম। ধরল না। অসহায় অবস্থায় বাচ্চাকে ঘুম থেকে তুলে আমার স্ত্রীকে নিয়ে হাঁটা দিলাম ফাঁকা রাস্তায়। কিছুদূর গিয়ে একটা সিএনজি পেলাম। উনি যেতে রাজি হলেন। গেলাম কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ইমার্জেন্সি তখন ঘুমাচ্ছে।

অনেক কষ্ট করে ডিউটি ডাক্তার সাহেবের ঘুম ভাঙানো হল। উনি কাগজে লিখে দিয়ে ৪তলায় ৪১৭ নম্বর ওয়ার্ডে যেতে বললেন। গেলাম।

ওখানে ১৫ মিনিট কাউকে পেলাম না। অবশেষে এক সিস্টার বা আয়া এমন কেউ এলেন। জানলাম ডাক্তার সাহেব ঘুমাচ্ছেন।

পাক্কা আধা ঘণ্টা ধরে দরজা নক করার পর উনি এলেন। দেখলেন। তার পর ব্যবস্থাপত্র লিখতে গিয়ে দুটো কলমই কালিশূন্য পেলেন।

আবার গেলেন তার কক্ষে। গিয়ে ফিরলেন আরও ১০-১২ মিনিট পর।

এ দিকে বেশ কয়েকজন রোগী জমে গেছে।

অবশেষে আমার স্ত্রীর ব্যবস্থাপত্রে ওষুধ লিখলেন- এলজিন ইঞ্জেকশন, নরমাল স্যালাইন আর খাবার স্যালাইন।

মজার বিষয় হল ডাক্তার সাহেব সঙ্গে অতিরিক্ত দুটো স্লিপ ধরিয়ে দিলেন।

স্লিপ-১ : ৭টি টেস্টের নাম স্লিপ-২ : বাদুরতলার শেফা ও আজাদ ক্লিনিকের নাম।

মুখে বলে দিলেন এই টেস্টগুলো যেন ওখান থেকেই করাই। অনেকটা আদেশের মতো।

আমি ভেজা বিড়ালের মতো বললাম, জি আচ্ছা। এর মাঝে কথা হল দেবিদ্বার থেকে আসা এক ডেঙ্গু রোগীর স্বজনের সঙ্গে। তার মহিলা রোগীর প্লাটিলেট কমেই চলেছে। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন।

কিন্তু মজার বিষয় হল রোগীর ওয়ার্ডে কোনো ডাক্তার নেই। ডাক্তার আসবেন সকালে অথবা আরও পরে। পরে আমার স্ত্রীকে নিয়ে চলে এলাম।

ইঞ্জেকশনটা একটা বেসরকারি ক্লিনিকে গিয়ে পুশ করালাম।

উপলব্ধি-০১ : গরিবের জন্য কোনো চিকিৎসা নেই

উপলব্ধি-০২ : ডেঙ্গু নিয়ে প্রান্তিক লেভেলে সরকারের নির্দেশনা কতটা ফলো করা হচ্ছে তা ভেবে দেখার আছে।

উপলব্ধি-০৩ : আমাদের স্বাস্থ্যসেবা ২৪ ঘণ্টার নয় বরং ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের (সরকারি/ বেসরকারি) দায়িত্বশীলদের মর্জি মোতাবেক নির্ধারিত সময়ে।

উপলব্ধি-০৪ : অধিকাংশ বেসরকারি ক্লিনিক কেবল সকাল-সন্ধ্যা দোকান খোলে। ব্যবসা শেষে দোকান বন্ধ। রোগী জাহান্নামে যাক।

যা আইনত দণ্ডনীয়। ক্লিনিকে অবশ্যই ইমার্জেন্সি ডাক্তার থাকা বাধ্যতামূলক।

উপলব্ধি-০৫ : যত দায় আমাদের।

# রমজানে ভেজাল খাদ্য প্রতিরোধ করো সকাল-সন্ধ্যা

# রাত জেগে পাবলিক পরীক্ষার ব্যবস্থাপনা করো

# ঘুম হারাম করে দুর্যোগ মোকাবিলা করো

# ইলেকশনে টানা রাত জেগে কাজ করো

# ঈদে নির্বিঘ্নে জনসাধারণের বাড়ি যাওয়া নিশ্চিত করো

# জাতীয় দিবসের প্রস্তুতিতে অঘুম রাত কাটাও

# বিশেষ সংকটে জেগে থাকো রাতের পর রাত আর খেটে যাও সংকট মোকাবিলায়।
মেডিকেল সেক্টরের জন্য করুণা। স্রোষ্টা হেদায়েত দান করুণ। আমিন।’

শুক্রবার দিনব্যাপী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় তোলে নির্বাহী মেজিস্ট্রেটের সেই স্ট্যাটাসটি।

দেশের চিকিৎসাসেবার মান নিয়ে প্রশ্ন তুলে চিকিৎসকদের কটাক্ষ করা শুরু হয় মন্তব্যের ঘরে।

এ সব মন্তব্যের মধ্যেই শুক্রবার রাতে স্ট্যাটাস দুটি ফেসবুক থেকে মুছে দেন ওই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

তবে ইতিমধ্যে তার সেই স্ট্যাটাসটি স্ক্রিনশট আকারে নানাজনের টাইমলাইনে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমদাদুল হক তালুকদার জানান, কোনো হাসপাতাল বা কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করিনি আমি। স্ত্রীর অসুস্থতার কারণে কুমেকে গিয়ে যে ভোগান্তির শিকার হয়েছি তা প্রকাশ করেছিলাম মাত্র।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওই স্ট্যাটাস প্রসঙ্গে কুমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. স্বপন কুমার অধিকারী বলেন, হ্যাঁ, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের স্ত্রীর চিকিৎসা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাসের বিষয়টি শুনেছি। শনিবার এ বিষয়ে খতিয়ে দেখা হবে।

Imdadul Haque Talukder, Executive Magistrate of the Comilla District Administration, went to Comilla Medical College Hospital (Kumek) for treatment of his wife. Imdadul Haque was taken to Kumek Hospital on Thursday night. He did not disclose his identity to hospital staff and doctors at that time.

The victim’s magistrate gave two status to his Facebook ID on Friday morning and afternoon, where Kumek revealed various details of his disappearance at the hospital. His status in the net world has gone viral since yesterday.

The status of Magistrate Imdadul Haque Talukdar was taken up,

‘4:30. My wife suddenly had severe abdominal pain. He was shouting. I was very nervous. I continued to call many emergency emergency numbers. No one caught the call.

I called the big hospital number. No one was caught. One please call the ambulance and tell her ambulance in Dhaka. Could not be found

I called almost all my drivers. Don’t get caught. When I was helpless, I woke my baby up and took my wife along the empty road. After a while I got a CNG. He agreed to go. I went to Comilla Medical College Hospital. Emergency is sleeping.

The duty doctor’s sleep was broken due to a lot of hardship. He wrote on the paper and asked to go to ward 4 on the 5th floor. I went.

I couldn’t find anyone there for 5 minutes. Eventually a Sister or someone came along. I knew the doctor was sleeping.

He came after knocking on the door for half an hour. You see After that, while writing the booklet, both pens got tense.

He went back to his room. Got back another 5-12 minutes.

A number of patients have frozen.

Finally my wife administered drugs – Elgin injection, normal saline and food saline.

Interestingly, the doctor handed over two extra slips to the doctor.

Sleep-2: Name of 5 Tests Sleep-2: Name of Shefa and Azad Clinic of Baduratala.

He told me to do these tests from there. Much like the order.

I said like a wet cat, yes. The talk is about a dengue patient coming from Devdibar. The platelet of his female patient is decreasing. Concerned about this.

But the funny thing is that there is no doctor in the patient’s ward. The doctor will come in the morning or later. Later I brought my wife.

I went to a private clinic and pushed it.

Perception-1: There is no treatment for the poor

Perception-12: At the marginal level with dengue, we have to consider how much government directives are being followed.

Perception-1: Our healthcare is not scheduled for 24 hours but at the time of the discretion of the person or organization (public / private) responsible.

Perception-1: Most private clinics open only morning and evening shops. The store closed at the end of the business. Let the patient go to hell.

Which is legally punishable. It is mandatory to have an emergency doctor at the clinic.

Perception-1: As much responsibility as we have.

# Prevent adulterated food during Ramadan morning and evening

# Manage public exams at night

# Deal with disasters by forbidding sleep

# Wake up at night on Election Day

# Be sure to go to the public house seamlessly

Spend the night in preparation for # National Day

# Stay awake in special crises night after night and meet the crisis. 
Compassion for the medical sector. May the Creator be guided. Amin. ‘

The executive magistrate’s status quo was stormed by social media on Friday.

Commenting on questions about the quality of medical care in the country, doctors started commenting.

Of those comments, the executive magistrate deleted the status from Facebook on Friday night.

But already his status is revolving around the timeline in the form of screenshots.

Executive Magistrate Imdadul Haque Talukder said, “I have not made any complaint against any hospital or anyone. I just went to Kumeke because of my wife’s illness and expressed the pain I suffered.

The Executive Magistrate said in reference to the status of the director of Kumek Hospital. Swapan Kumar Adhikari said, “Yes, I have heard about the status of Facebook on the treatment of the executive magistrate’s wife.” The matter will be investigated on Saturday.

About Somaj Seba

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *